Open Modal

Open Modal

OREGANO PIZZA (অরিগানো পিজা)

100.00৳
Product Type: Oregano Pizza

The original picture is shown

Out of stock
+ -
Vendor: Golden Food

অরিগানো পিজাঃ-

পিৎজা প্রেমীদের কাছে অরিগানো খুবই পরিচিত। আর হবে নাই বা কেন। উপর থেকে সামান্য অরিগানো ছড়িয়ে দেওয়া মাত্রই গরমা গরম পিৎজার স্বাদ যেন দ্বিগুণ বেড়ে যায়। তবে অরিগানো কেবল খাবারের স্বাদ বাড়ায় না, এর গুণও অনেক। অরিগানো একটি ভেষজ ঔষধি। বিশ্বায়নের দৌলতে রান্নাঘরে মশলা হিসেবেও এর কদর বেড়েছে। রান্নার পাশাপাশি আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় এর ব্যবহার করা হয়। এই গাছের বিভিন্ন অংশ নানান শারীরিক সমস্যা উপকারী হতে পারে। অরিগ্যানো একটি ভেষজ উপাদান। এটি আসলে জোয়ান গাছের পাতা। অরিগ্যানোর পাতা অনেকটা তুলসী এবং পুদিনা পাতার মতো দেখতে। বলা হয়, সারা বিশ্বের এরকম আর ৬০টি প্রজাতির গাছ রয়েছে, যার রং ও স্বাদ অরিগ্যানোর মতোই এবং অধিকাংশ সময় অরিগ্যানো হিসেবেই পরিচিত। এই গাছের ঔষধি গুণ অনেক। এছাড়াও অরিগ্যানোর ব্যবহার, পিৎজা, পাস্তা, স্যুপ এর মতো খাবারের স্বাদ বাড়াতে ব্যবহার করা হয়।

অরিগানোর উপকারিতাঃ- 

হার্টের সুস্বাস্থ্যঃ

কার্ডিওভাসকুলার সমস্যাগুলি এক ধরণের দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহজনক অবস্থা যেখানে কোষগুলি পুনরূদ্ধার করতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় নেয়। এটি বিভিন্ন কারণে যেমন ধূমপান, ডায়াবেটিস এবং প্রদাহের কারণে হতে পারে। অরিগ্যানোর এসেনশিয়াল অয়েলের মধ্যে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা প্রদাহ এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। সেইসঙ্গে এতে কার্ডিওপ্রোটোক্টিভ বৈশিষ্ট্যও রয়েছে, যা হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।


ক্যান্সার প্রতিরোধঃ

অরিগ্যানো পাতা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সহায়ক হতে পারে। অরিগ্যানো থাইমল, কারভ্যাক্রোল এবং আরও কিছু ক্যান্সার বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এগুলি ক্যান্সার কোষকে বৃদ্ধি থেকে রোধ করতে পারে এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে। বিশেষত, অরিগ্যানো কোলন ক্যান্সার কোষকে বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। এর প্রোয়াপোপটোটিক

এফেক্ট (Proapoptotic Effects) রয়েছে, যা ক্যান্সার কোষকে মেরে ফেলতে পারে এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতেও সহায়তা করতে পারে। কিন্তু মনে রাখবেন, ঘরোয়া উপায়ে ক্যান্সারের ঝুঁকি কিছুটা হলেও কম করা যায় ঠিকই তবে নিরাময় নয়। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যান এবং সঠিক চিকিৎসা করান।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ

অরিগ্যানো পাতা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে। এতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই মতো অনেক পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এই ভিটামিনগুলি কার্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে বিবেচিত হয়। এই ভিটামিনগুলি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এগুলি শরীরে ফ্রি-রেডিক্যালসেরপ্রভাব হ্রাস করতে পারে এবং কোষকে তাদের প্রভাব থেকে রক্ষা করতে পারে। এর জন্য একগ্লাস জলে অরিগ্যানো পাতা সেদ্ধ করে সেই জলটি খেতে পারেন।

অবসাদ কাটায়ঃ

জানলে হয়ত অবাক হবেন, হতাশার বিরুদ্ধে লড়াইয়েও অরিগ্যানো উপকারী। এনসিবিআই দ্বারা প্রকাশিত একটি গবেষণায় (National Center for Biotechnology Information) পাওয়া গেছে যে, অরিগ্যানো এসেনসিয়াল অয়েলে কার্বাক্রোল (Carvacrol) বৈশিষ্ট্য অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট এজেন্টের মতো কাজ করে। অন্য একটি গবেষায় দেখা গেছে, এটি ডোপামিনার্জিক সিস্টেমকে (ডোপামিন – এক ধরণের হরমোন এবং নিউরোট্রান্সমিটার) প্রভাবিত করে। ডোপামিনার্জিক প্রক্রিয়ায় প্রভাব পড়ার ফলে অবসাদের লক্ষণ কম করতে সহায়ক হতে পারে।

বদহজম থেকে মুক্তিঃ

অরিগ্যানো এসেনশিয়াল অয়েলে অনেক জৈবিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেমন, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা শরীরের জন্য উপকারী হতে পারে। এটি অন্ত্রের ক্ষতি করতে পারে এমন ব্যাক্টেরিয়ার সংখ্যা কম করে, যেমন ই কোলাই এর সংখ্যা কম করে এবং অন্ত্রের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়াও এটি অন্ত্রের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে, যার ফলে কিছুটা হলেও আপনি বদহজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এরিগ্যানো এসেনশিয়াল অয়েলে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেটিভ বৈশিষ্ট্যগুলি অন্ত্রের অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কম করে এবং অন্ত্রের সুস্থতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এর জন্য এক কাপ গোলমরিচ এথবা লেবু চায়ে এক বা দুই ফোঁটা অরিগ্যানো তেল মিশিয়ে খান। বদহজমের সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও আরাম পাবেন। তবে এইবিষয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন।

পেটব্যথা কমায়ঃ

অনেক সময় অনিয়মিত খাওয়াদাওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য, বদহজম, ফুড পয়েজনিং এবং অন্যান্য কারণে পাকস্থলীর ব্যথা হতে পারে। যেমন, পেটের ব্যথা থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য অরিগ্যানো বেশ উপকারী। অরিগ্যানো এসেনসিয়াল অয়েলে মনোটেরপেনিক ফিনল (Monoterpenic Phenol) নামক একটি যৌগ পাওয়া যায় যা পেটের ব্যথা কিছুটা কম করতে সাহায্য করে। এর জন্য এক গ্লাস জল বা জুসে এক থেকে দু’ফোঁটা অরিগ্যানো তেল মিশিয়ে খেতে পারেন।

জয়েন্টে ব্যথা উপশমঃ

হাটুর ব্যথায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য অরিগ্যানো গাছ সঞ্জীবনী বুটির থেকে কম নয়। অরিগ্যানোতে কারভ্যাক্রোল নামের মনোট্রেপিক ফিনল যৌগ পাওয়া যায়। এই যৌগটিতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা অস্টিওআর্থারাইটিসের কারণে জয়েন্টের ব্যথা কম করতে পারে। জেয়েন্টের ব্যথা থেকে আরাম পেতে অরিগ্যানো পাতার চা তৈরি করে খেতে পারে। রোজ সকালে এককাপ জলে কয়েকটি পাতা ফুটিয়ে সেই জল খান। আপনি চাইলে অরিগ্যানো এসেনশিয়াল অয়েল মালিশ করতে পারেন।

ফোলাভাব থেকে মুক্তি দেয়ঃ

অরিগ্যানোর উপকারিতা সম্পর্কে বলতে গেলে, এর অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণের কথা অস্বীকার করা যায় না আর এর জন্য আপনি এসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। এনসিবিআই এর প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এই তেল ব্যবহার ত্বকের ফোলাভাব ও জ্বালা কমাতে সাহায্য করতে পারে। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে থাকা কারভ্যাক্রোল (Carvacrol) উপাদান আলসারের ব্যথা কম করতে এবং এর ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে।

 ডায়াবেটিসের ওষুধঃ

টাইপ টু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও অরিগ্যানো উপকারী। ইঁদুরের উপর করা একটি পরীক্ষায় দেখা গেছে, অরিগ্যানো পাতার নির্যাস শরীরে গ্লুকোজ এবং ইনসুলিনের বর্ধিত মাত্রা নিয়ন্ত্রিণ করতে সহায়তা করতে পারে। এছাড়াও, এটি লিপিড মেটাবলিজমকে উন্নত করতে পারে এবং ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির লিভার এবং কিডনি সুস্থ রাখতে সাহায্য করতে পারে।

 সর্দি এবং জ্বর থেকে মুক্তিঃ

সর্দি, জ্বর এবং সাধারণ সর্দির উপসর্গ কমাতে অরিগ্যানো ব্যবহার করতে পারেন। অরিগ্যানো এসেনশিয়াল অয়েলে অ্যান্টি-ইনফ্লুয়েঞ্জা বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা সাধারণ সর্দির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। সেইসঙ্গে অরিগ্যানো গাছ অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ, যা ভাইরাস এবং ব্যক্টেরিয়ার সঙ্গে লড়াই করে সাধারণ সর্দি কম করতে সাহায্য করতে পারে।

রক্তাল্পতা কাটায়ঃ

শরীরে আয়রনের ঘাটতির কারণে রক্তাল্পতা হয়। আয়রন শরীরে হিমোগ্লোবিনতৈরি করে, যা এক ধরণের প্রোটিন। রক্তাল্পতায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য অরিগ্যানো উপকারী। অরিগ্যানো পাতায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়, যা আয়রনের ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করতে পারে। জলে শুকনো অরিগ্যানো পাতা ফুটিয়ে নিন এবং সেই জল খান, উপকার পাবেন।

হাড় শক্ত করেঃ

হাড় শক্ত রাখতে প্রচুর পুষ্টিকর উপাদান প্রয়োজন। যার মধ্যে সবার শীর্ষে আসে ক্যালসিয়াম। অরিগ্যানো পাতায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। এছাড়াও এতে আরও পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে যা হাড়ের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখে এবং শক্তিশালী করে তোলে। ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, দস্তা, তামা এবং ম্যাঙ্গানিজ বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে। এর পাশাপাশি অরিগ্যানোতে হাড় শক্ত করার জন্য উপকারী ভিটামিন যেমন ভিটামিন সি, ভিটামিন এ এবং ভিটামিন কে রয়েছে।

ত্বকের যত্নঃ

ত্বকে কোনওরকম সংক্রমণ এড়াতে বা কোনও সংক্রমণ হলে তার প্রভাব কমাতে অরিগ্যানো ব্যবহার করা যেতে পারে। এর অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল বৈশিষ্ট্য সংক্রমণ ছড়ায় এমন ব্যাক্টেরিয়া দূর করে। এর অ্যান্টি-ইনফ্ল্যেমেটরি এবং ইমিউনোমডুলেটরি (Immunomodulatory) বৈশিষ্ট্য ত্বকের প্রদাহ কম করতে পারে। এতে ক্যান্সার বিরোধী বৈশিষ্ট্যও রয়েছে, যা স্কিন ক্যান্সারের ঝুঁকি কম করতে পারে।

চুলের সৌন্দর্যঃ

যারা চুল পড়ার সমস্যায় ভুগছেন তারা অরিগ্যানো ব্যবহার করতে পারেন। গবেষণায় দেখা গেছে যে, অক্সিডেটিভ স্ট্রেস চুল ওঠার অন্যতম কারণ হতে পারে। যেমনটি আগে উল্লিখিত, অরিগ্যানো কার্যকরী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করতে পারে, তাই বলা যেতে পারে এর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট বৈশিষ্ট্য অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কম করতে এবং চুল পড়ার সমস্যা রোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

Write your own review Close Review Form
  • Only registered users can write reviews
*
*
Bad
Excellent