Open Modal

Open Modal

FRY NUTS (ভাজা বাদাম)

100.00৳
Product Type: Fry Nuts

The original picture is shown

Out of stock
+ -
Vendor: Golden Food

 

 

ভাজা বাদাম:-

বাদাম অন্যতম পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি খাবার। ক্যম্পাসে, কিংবা পার্কে বাদাম খাওয়া ইতিহাস অনেক পুরনো। বাদামে রয়েছে ক্যালোরি, প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কপার, ম্যাংগানিজসহ আরও অনেক উপকারী উপাদান। অফিসের টেবিলে কিংবা ব্যাগে তাই বয়াম ভর্তি করে বাদাম রাখতে পারেন। নিয়মিত বাদাম কেন খেতে হবে


শরীরের জন্য উপকারী কোলেস্টেরল পাওয়া যায় বাদাম থেকে। বাদামে রয়েছে সি-রিঅ্যাক্টিভ প্রোটিন ও ইন্টারলিউকিন যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।
ফাইবার সমৃদ্ধ বাদাম দূর করে হজমের গণ্ডগোল। বাদাম খেলে হৃদপিণ্ড সক্রিয় থাকে। নিয়মিত বাদাম খেলে রক্তচাপ থাকে নিয়ন্ত্রণে। এমনকি রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে বাদাম। নিয়মিত বাদাম খেলে হাড় শক্ত থাকে।
বাদামে থাকা প্রাকৃতিক তেল ত্বককে সতেজ রাখতে সাহায্য করে। বাদাম খেলে দাঁতের ক্ষয় প্রতিরোধ হয়।স্মৃতিশক্তি বাড়াতে বাদামের উপকারিতা প্রচুর।

 

প্রতি ৩.৫ আউন্স (১০০ গ্রাম) কাঁচা বাদামে আছে:-

ক্যালরি : ৫৬৭

পানি : ৭ শতাংশ

প্রোটিন : ২৫.৮ গ্রাম

কার্ব : ১৬.১ গ্রাম

চিনি : ৪.৭ গ্রাম

ফাইবার : ৮.৫ গ্রাম

ফ্যাট : ৪৯.২ গ্রাম

 

 

 

 

বাদামে আছে কয়েক প্রকার স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, এই তালিকায় ১০০ গ্রাম পরিমাণের বিভিন্ন ফ্যাট সমুহের বিস্তারিত দেওয়া হলো –

 

স্যাচুরেটেড ফ্যাট : ৬.২৮ গ্রাম

মনো স্যাচুরেটেড ফ্যাট : ২৪.৪৩ গ্রাম

পলিন স্যাচুরেটেড ফ্যাট : ১৫.৫৬ গ্রাম

ওমেগা-৩ : ০ গ্রাম

ওমেগা-৬ : ১৫.৫৬ গ্রাম

ট্রান্স ফ্যাট : ০ গ্রাম

বাদামে প্রচুর পরিমাণ ফ্যাট বা চর্বি থাকে, এতটাই যে এটিকে অয়েলসিড নামেও ডাকা হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে যত বাদাম চাষ করা হয় এর বেশিরভাগ দিয়েই পরর্বতীতে তেল তৈরী হয় যা আমরা বাদাম তেল নামে চিনি। বাদামে ৪৪ থেকে ৫৬ শতাংশ পরিমাণ ফ্যাট থাকে এবং এর একটি বড় অংশ থাকে মনো স্যাচুরেটেড এবং পলি স্যাচুরেটেড ফ্যাট। এই ফ্যাট আমাদের দেহে ওয়েলিক এবং লিনোলেয়িক অ্যাসিড তৈরী করে।

 

বাদামের পুষ্টিগুণ ও উপকারিতা:-

দৈনিক একমুঠো বা ৩০ গ্রাম বাদাম ওজন কমায়, হৃদ্রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখে, স্মৃতিশক্তি বাড়ায় ও রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে।  প্রোটিন, ফাইবার,ক্যালসিয়াম,আয়রন, সোডিয়াম,পটাসিয়াম, ভিটামিন-এ,বি, সি রয়েছে। ফলে এর উপকারিতা অনেক। তা ছাড়াও চিনাবাদাম স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিগুণে পরিপূর্ণ এবং এটি ওজন নিয়ন্ত্রণে এবং হার্ট ভালো রাখতেও বেশ কার্যকর।

 

 

 

কোলেস্টেরল কমায়: কোলেস্টরেলের সমস্যা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। হৃদ্রোগসহ নানা শারীরিক সমস্যার মূলে রয়েছে এই বাড়তি কোলেস্টেরল। চিনাবাদাম দেহের ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমাতে বিশেষভাবে কার্যকরী। বাদামের ভালো ফ্যাট কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইড কমিয়ে ফেলে কোনো ধরনের ওজন বাড়ানো ছাড়াই। রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে রাখে:চিনাবাদাম রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। সকালের নাশতায় চিনাবাদাম বা চিনাবাদামের মাখন খেলে প্রায় পুরো দিনই রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে।


ওজন কমায়: ওজন কমানোর জন্য কিছুটা ভালো চর্বির প্রয়োজন রয়েছে। আর চিনাবাদামে রয়েছে ভালো ফ্যাটি অ্যাসিড। এ ছাড়া ডায়াবেটিসের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রতিদিন অল্প হলেও চিনাবাদাম খাওয়া উচিত ।


স্মৃতিশক্তি বাড়ায়: বয়স হতে না হতেই স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়া শুরু করে অনেকেরই। এর কারণ হচ্ছে মস্তিষ্ক ধীরে ধীরে তার স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা হারায়। মস্তিষ্কের জন্য প্রয়োজন হয় সঠিক খাদ্যের। চিনাবাদামকে বলা হয় মস্তিষ্কের খাবার।


রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়: খুব হুটহাট নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ার সমস্যাকে মূলত রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কমে যাওয়ার মূল লক্ষণ হিসেবে ধরা হয়। চিনাবাদাম এই রোগ প্রতিরোধক্ষমতাকেই উন্নত করতে কাজ করে। চিনাবাদামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা উন্নত করে। নিয়মিত চিনাবাদাম খেলে ক্যানসার ও হৃদ্রোগে অকালমৃত্যুর ঝুঁকি কমে। নেদারল্যান্ডসের মাসট্রিখট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা এই দাবি করেছেন। চিনাবাদাম ও নানা জাতের গাছবাদামে এমন পুষ্টি উপাদান আছে, যা অনেক রোগ থেকেই আমাদের বাঁচাতে পারে। ‘নাট বাটার’ বা বাদামের মাখন না খেয়ে সরাসরি চিনাবাদাম খাওয়াটাই উপকারী। যে নারী-পুরুষেরা প্রতিদিন অন্ততপক্ষে ১০ গ্রাম চিনাবাদাম বা কোনো বাদাম খান তাঁদের ক্যানসার ও হৃদ্রোগসহ নানা রকম মরণব্যাধি থেকে অকালমৃত্যুর ঝুঁকি বাকিদের তুলনায় কম।

Write your own review Close Review Form
  • Only registered users can write reviews
*
*
Bad
Excellent