Open Modal

Open Modal

CASHEW NUT (কাজুবাদাম)

100.00৳
Product Type: Cashew Nut

The original picture is shown

*
Out of stock
+ -
Vendor: Golden Food

কাজুবাদামঃ

ইংরেজী নাম ক্যাশিও বাংলায় যেটা আমরা কাজু হিসেবে জানি। রান্না এবং বিভিন্ন স্ন্যাকিং তৈরিতে কাজু বাদাম এর বেশ কদর। এছাড়া পোলাও, কোরমা, বারফি, বিভিন্ন মিষ্টি, কেক ইত্যাদিতেও ব্যবহৃত হয়। সকল প্রকার খাবারের মধ্যে বাদাম অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার। পুষ্টির সাথে সাথে এটি অত্যন্ত সুস্বাদুও। বাদাম নিয়মিত খেলে বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমে যায়। শুধু তাই নয় স্বাস্হ্যের জন্য বেশ উপকারী প্রভাবক হিসেবে কাজ করে। যেমন সুগার কম থাকে, উচ্চ ফাইবার সমৃদ্ধ, কপার, ম্যাগনেসিয়াম ও ম্যাংগানিজের বেশ ভাল উৎস। তাইতো এটি শরীরে শক্তি যোগায়, ইমিনিউম এবং ব্রেইন এর স্বাস্হ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

গবেষণায় জানা গেছে এই বাদাম খাওয়ার ফলে অনেক রোগ মুক্তির সাথে সাথে ব্রেনে পুষ্টি জোগায়, যার ফলে যেসকল মানুষ মনে রাখতে পারে না। তাদের মনে রাখতে সাহায্য করে। বাদামে প্রচুর আঁশ ও পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। এর মধ্যে হৃৎপিণ্ডের জন্য উপকারী উপাদানও রয়েছে। 

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত যদি ৩-৪ টি করে কাজু বাদাম খাওয়া যায়, তাহলে শরীরে নানা পুষ্টিকর উপাদানের ঘাটতি দূর হয়, সেই সঙ্গে দৈনিক ১০ গ্রাম করে বাদাম গ্রহণ করলে মৃত্যুর জন্য দায়ী কয়েকটি বড় ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। 

কাজুবাদামের উপকারিতা:

কাজু বাদাম খেতে অনেক মুখরোচক হয়। কাজু বাদামের মধ্যে আছে আয়রন, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম। আরও আছে ভিটামিন-এ যার ফলে অ্যানিমিয়া ভালো হয়, ত্বক উজ্জ্বল করেতেও সাহায্য করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও সাহায্য করে থাকে। কিডনি বা শিমের বীচির আকৃতির কাজু বাদামের প্রচুর স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে অনেক। আজ সেই উপকারিতাগুলো সম্পর্কেই জেনে নেই চলুন:-

হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখে:

কাজু বাদামে ভালো ফ্যাট থাকে এবং এতে কোন কোলেস্টেরল থাকেনা। খারাপ কোলেস্টেরল এলডিএল এর মাত্রা কমাতে সাহায্য করে কাজু বাদাম। অনেকেই মনে করে থাকে চর্বি গ্রহণ বাদ দেয়াটা শরীরের জন্য ভালো, কিন্তু এই কথাটি আসলে সত্যি নয়। সুস্থ দেহের জন্য খাদ্যের সকল ধরণের গুরুপ থেকেই এমনকি ফ্যাট থেকেও পুষ্টি উপাদান প্রয়োজন। ভালো উৎস থেকে তা গ্রহণ করতে হবে যেমন- কাজু বাদাম। তাছাড়া কাজুতে অলেইক এসিড থাকে যা হার্টের জন্য অনেক উপকারি।

শক্তিশালী হতে সাহায্য করে:

কাজু বাদাম ম্যাগনেসিয়ামে সমৃদ্ধ যা শক্ত হাড়ের জন্য, মাংসপেশী ও স্নায়ুর সঠিক কাজের জন্য প্রয়োজনীয়। আমাদের শরীরে দৈনিক ৩০০-৭৫০ গ্রাম ম্যাগনেসিয়াম প্রয়োজন হাড়ের মধ্যে ক্যালসিয়াম শোষণের জন্য। আর কাজুবাদামে ম্যাগনেসিয়াম ভরপুর থাকে। তাই বেশি করে কাজুবাদাম খাওয়া উচিত।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে:

কাজুবাদামে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বিদ্যমান থাকে। সাথে পটাসিয়াম প্রচুর থাকে। কিন্তু এই বাদামটিতে সোডিয়াম কম থাকে। পটাসিয়াম বেশি থাকাই রক্তচাপ নিয়ন্তনে অনেক সাহায্য করে । যার ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে চাইলে প্রচুর কাজুবাদাম খাওয়ার প্রয়োজন।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়:

কাজু বাদামে সেলেনিয়াম থাকে এবং ভিটামিন ই থাকে। যা ফ্রি যাডিকেলের জারণ প্রতিরোধ করে। যার ফলে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। কাজুতে প্রচুর জিংক থাকে বলে ইনফেকশনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতেও সাহায্য করে থাকে।

শরীরের বিভিন্ন কাজের প্রধান ভূমিকা পালন করে:

কাজুবাদামে আরো থাকে উচ্চমাএায় কপার। তাই যেহেতু কাজুতে উচ্চমাত্রার কপার থাকে তাই এনজাইমের কাজে, হরমোনের উৎপাদনে এবং মস্তিস্কের কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও লাল রক্ত কণিকার উৎপাদনেও সাহায্য করে বলে অ্যানেমিয়া প্রতিরোধে সহায়তা করে।

চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়:

কপার হল সেই খনিজ, যা চুলের ঔজ্জ্বল্য বাড়ানোর পাশাপাশি চুলের গোড়াকে শক্তপোক্ত করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর এই উপাদানটি প্রচুর পরিমাণে রয়েছে কাজুতে। এবার নিশ্চয় বুঝতে পেরেছেন কিভাবে কাজু চুলের সৌন্দর্য বাড়িয়ে থাকে। তবে এখানেই শেষ নয়, কাজু বাদামে থাকা কপার শরীরের ভেতরে এমন কিছু এনজাইমের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়, যা চুলের কালো রংকে ধরে রাখতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।

যেহেতু কাজুতে উচ্চমাত্রার ক্যালোরি থাকে তাই দৈনিক ৫-১০ টা কাজু বাদাম খাওয়াই যথেষ্ট। যাদের অ্যালার্জির সমস্যা আছে এবং মাইগ্রেনের সমস্যা হয় যাদের তাদের না খাওয়াই ভালো। বিভিন্ন ধরণের কাজু বাদাম পাওয়া যায় যেমন- লবণাক্ত, সিদ্ধ বা মশলাযুক্ত। হাইপারটেনশনের রোগীদের সল্টেড কাজু না খাওয়া ভালো।

Write your own review Close Review Form
  • Only registered users can write reviews
*
*
Bad
Excellent