Open Modal

Open Modal

BLACK BEANS (কালো রাজমা)

70.00৳
Product Type: Black Beans

The original picture is shown

In stock
+ -
Vendor: Golden Food

রাজমাঃ- 

রাজমা এক ধরনের শিম বীজ। ইংরেজিতে বলে কিডনি বিনস। আমরা যাকে চিনি রাজমা হিসেবে। পার্শবর্তী দেশ ভারতে এটি বেশ জনপ্রিয় একটি খাবার। সাদা, ক্রিম, কালো, লাল, বেগুনি, স্পটেড, স্ট্রাইপড এবং মোটলড নানা রকম কিডনি বিনস পাওয়া যায়। রাজমা উদ্ভিজ্জ প্রোটিনের একটি প্রধান উৎস এবং এর উপকারিতা অনেক। পরিপক্ব শিমবীজে প্রচুর আমিষ, ফাইবার এবং স্নেহজাতীয় উপাদান রয়েছে। এ ছাড়া এতে আটটি প্রয়োজনীয় অ্যামিনো এসিড রয়েছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

চলুন দেখে নেওয়া যাক রাজমার স্বাস্থ্যগুণগুলোঃ-

১) প্রোটিন সমৃদ্ধঃ

ইউএসডিএ অনুযায়ী, ১০০ গ্রাম কাঁচা কিডনি বীনে রয়েছে প্রায় ২৪ গ্রাম প্রোটিন। ভাতের সঙ্গে কিডনি বিনে সম্পূর্ণ প্রোটিন খাবার হিসাবেই জনপ্রিয়। সোয়া ও কুইনা ছাড়াই, উদ্ভিজ্জ প্রোটিন উৎস যেমন মটরশুটি, বাদাম ও গোটা শস্য আপনাকে প্রয়োজনীয় প্রোটিন যোগাতে অক্ষম। কিন্তু, অন্য খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে তারা প্রোটিন পদার্থে ভরপুর হয়ে ওঠে।

২) হজমে সহায়কঃ

হজমের সহায়ক কিডনি বিন দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় ফাইবার সমৃদ্ধ। ফাইবার পাচনতন্ত্র সুস্থ রাখতে সাহায্য করে, অন্ত্রের সমস্যা কমায়। কিন্তু অতিরিক্ত ব্যবহারে আবার গ্যাস বা পেট ফাঁপার মতো সমস্যাও হতে পারে।

৩) ডায়াবেটিকদের জন্য উপকারীঃ

কিডনি বিনের একটি বড় অংশই কার্বোহাইড্রেট। কিন্তু এই কার্বোহাইড্রেট ক্ষতিকারক নয় একেবারেই। এই কার্বোহাইড্রেট হজমে বিলম্ব ঘটায়, যার ফলে রক্ত​​প্রবাহে শর্করাও নির্গত হয় অল্প পরিমাণে। কিডনি বিন কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স সম্পন্ন হওয়ায় ডায়াবেটিসের জন্য আদর্শ খাদ্য।

৪) অপরিহার্য খনিজ পদার্থ সমৃদ্ধঃ

রক্ত তৈরি করে এমন আয়রন, ফসফরাস রয়েছে কিডনি বিনে। যা হাড় ও দাঁত মজবুত রাখতে সাহায্য করে, এর মধ্যে থাকা ভিটামিন কে স্নায়ুতন্ত্রের রক্ষাও করে।

৫) কোলেস্টেরল কমানোঃ

কিডনি মটরশুটি দ্রবণীয় ফাইবার সমৃদ্ধ। দ্রবণীয় ফাইবার পানি আকর্ষণ করে এবং হজমের সময় পানিকে জেলজাতীয় পদার্থে রূপান্তরিত করে। আমরা জানি যে দ্রবণীয় ফাইবার হজম করাতে সাহায্য করে কিন্তু অনেকেই জানি না যে বিন এলডিএল কোলেস্টেরল কমাতেও সাহায্য করে।

৬) ওজন হ্রাসঃ

কিডনি বিন উচ্চমানের প্রোটিন এবং ফাইবারে ঠাসা। পেট ভরা এই খাবার আপনার বারে বারে খাওয়ার প্রবণতা কমায়, ফলে ওজন থাকে নিয়ন্ত্রণে। এছাড়াও এর মধ্যে রয়েছে প্রতিরোধী স্টার্চ। যা ওজন নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

রাজমা যেভাবে খেতে পারেনঃ- 

★★ রাজমা ডাল রেসিপিঃ 

এক কাপ রাজমা ৫/৬ ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন।২/৩ টি টমেটো টুকরা করে কেটে রাখুন। পরিমাণমত একটা পাত্রে তেল গরম করে তাতে হালকা আঁচে এককাপ পিয়াজ কুঁচি ভাজতে থাকুন। পিয়াজের রং বাদামী হলে পরিমাণমত রসুন বাটা, আদা বাটা, হলুদের গুড়ো সহ ইচ্ছামত অন্যান্য মশলা, কাঁচা মরিচ দিয়ে নাড়তে থাকুন। মশলা লাল হয়ে তেল ছাড়া ছাড়া হলে টমেটো দিয়ে হালকা আঁচে নাড়তে থাকুন যতক্ষণ না টমেটো পুরোপুরি গলে যায়। এরপর রাজমা দিয়ে নাড়তে থাকুন। রাজমার শক্ত খোসার জন্য ভিতরে টমেটো ও মশলা যেতে সময় লাগবে। এজন্য যত বেশী সময় ধরে কম আঁচে রান্না করা যাবে, ততোই সুস্বাদু হবে। হয়ে আসলে ভাত ও রুটির সাথে পরিবেশন করুন।


★★ রাজমা সালাদ রেসেপিঃ

রাজমা ১ কাপ, পিঁয়াজকুঁচি আধা কাপ, বিট আধা কাপ, গাজর কুঁচি আধা কাপ, সরিষার তেল ২ চা চামচ, ভিনেগার ২ চা চামচ, কমলার রস ২ টেবিল চামচ, আদা কুচি ১ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, শুকনা মরিচের গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ২/৩ টি, লবণ স্বাদমতো। রাজমা৫/৬ ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে খোসা ছাড়িয়ে নিন। এবার সব উপকরণ একসাথে মিলিয়ে ভালো করে ফেটে পরিবেশন করুন। আপনার বাড়ির শিশুদেরও বিভিন্নভাবে রাজমা রান্না করে খাওয়ান।

Write your own review Close Review Form
  • Only registered users can write reviews
*
*
Bad
Excellent